মায়ের বান্ধবীর সাথে মায়ানমারে ভ্যাকেশন – পর্ব ২

আমাদের প্ল্যান হলো ১০ তারিখ আন্টি ও দিহান ইয়াঙ্গুন আসবে, ১২ তারিখ রাতে আমরা ম্যান্ডালে এর উদ্দেশ্যে রওয়ানা হব। ১৩, ১৪ রাত আমরা ম্যান্ডালে তে থাকব, ১৫ তারিখ দুপুরের পর আমরা বাগান এর জন্য রওয়ানা হব, এটাও মায়ানমারের একটা স্টেট। ১৫, ১৬ রাত থেকে ১৭ তারিখ রাতে রওয়ানা দিয়ে ১৮ তারিখ ইয়াঙ্গুন পৌছাব। তারপর ২২ তারিখ দিহান মালয়েশিয়া চলে যাবে আর আন্টি বাংলাদেশ।

সব ঠিক, এর মঝে দিহান ফোন দিয়ে বলল ভাইয়া আমি ত ১০ তারিখের প্লেনের টিকেট পাচ্ছি না ১৩ তারিখ এর আছে ইয়াঙ্গুন হয়ে সরাসরি মেন্ডালে তে। আর আমি ২২ তারিখ পর্যন্ত থাকতে পারব না আমাকে ১৭ তারিখে ফিরে আসতে হবে, আমার একটা এসাইনন্মেন্ট আছে।আমি জিজ্ঞেস করি আন্টি কি বলছে?আম্মু আর কি বলবে বলল এটাই করতে।

১০ তারিখ বুধবার সকাল থেকে শুরু হলো আঙ্কেল এর ফোন। এই এয়ারপোর্ট এ ঢুকছে, বিমানে উঠবে আমি যেন আগে গিয়ে এয়ারপোর্ট এ থাকি। বন্ধের আগের কাজ নিয়ে আমি এমনিতেই ব্যাস্ত তাই এয়ারপোর্টে যাইতে পারলাম না। আমি আমার কোম্পানির ড্রাইভার কে বাসার চাবি দিয়ে পাঠাইলাম। সাথে একটা সিম দিয়ে দিলাম ইন্টারনেট সহ।

ড্রাইভার কে আন্টির একটা ছবি দিয়ে বললাম একে এয়ারপোর্ট থেকে আমার বাসায় দিয়ে আসবা। সে ছবি দেখে ভাঙা ভাঙা ইংরেজিতে বলে তোমার বউ ত খুব সুন্দর। আমি ও ভাঙা ভাঙা মায়ানমার ভাষায় ঝাড়ি দিয়ে বলি ফাইজলামি কম কর এইটা আমার বউ না আমার আন্টি। বেটা লুচ্চা বলে, কিন্তু এ ত দেখতে একদম যুবতী। আমি এমনিতেই একটা কাজ নিয়ে ঝামেলায় ছিলাম তার বক বক এ আরো মেজাজ খারাপ হয়ে গেলো আমি আরো রেগে গিয়ে বললাম তুই যাবি না আমি অন্য কাউকে পাঠাব?

ফ্লাইট ২টায় নামে, আন্টির বের হয়ে ড্রাইভার কে পেতে তেমন কষ্ট হয় নাই। গাড়িতে উঠেই আমাকে ফোন করেন। আমি ক্ষমা চেয়ে বললাম আন্টি আপনি ওর সাথে বাসায় যান আমি আসতেছি একটু পরেই।

একটু পরে ত দুরের কথা আমার কাজ শেষ হইতে হইতে ছয়টা বেজে গেলো। অফিস থেকে আমার বাসা হেটে যেতে ২০ মিনিট লাগে। আমি একটা রেসিডেন্সিয়াল এলাকায় একটা কন্ডো তে ৮০০ স্কয়ার ফিট এর স্টুডিও এপার্ট্মেন্ট এ ভাড়া থাকি। এপার্ট্মেন্ট টা অনেক সুন্দর কিন্তু সমস্যা হলো প্রাইভেসি নেই মানে একটা রুম আর বাথরুম। যেহেতু আমি একা থাকি তাই সমস্যা নেই, কিন্তু আন্টি কি করে থাকবে?

আমি বাসায় গিয়ে দরজায় করা নারতেই আন্টি দরজা খুললেন। তিনি একটা সাদা সালোয়ার কামিজ পরা মাত্র ঘুম থেকে উঠলেন হয়ত। কি সুন্দর যে দেখাচ্ছে তাকে ঢুলু ঢুলু চোখে, আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না। সাথে সাথে আমার ড্রাইভারের কথা মনে পরে গেলো। বেটা বলতেছিলো আমার বউ নাকি অনেক সুন্দর। ইশ উনি যদি সত্যি আমার বউ হত। আন্টির কথায় আমার সম্ভিত ফিরে এলো…আমাকে বলল কি হলো দরজায় দাঁড়িয়ে থাকবে নাকি?আমি সালাম দিয়ে হাসি মুখে বললাম কেমন আছেন আন্টি?ভাল তুমি ত ব্যাস্ত বাবু এয়ারপোর্ট ও আসতে পারলে না।

আমি একটু অপরাধ সুচক হাসি দিয়ে বললাম প্রায় এক সপ্তাহ বন্ধ, বাংলাদেশ এর অফিসে অনেক গুলো রিপোর্ট পাঠাতে হবে অনেক কে কাজ বুঝিয়ে দিতে হচ্ছে সব শেষ না করলে এই ছুটির মধ্যে ঝামেলা করবে। তাই চেষ্টা করছি এই সময়ের মধ্যে শেষ করতে। আর ত একদিন আছে অফিসের, যেহেতু অনেকেই নিজের গ্রামের বাড়িতে যাবে তাই অফিস শুক্রবারে ছুটি ঘোষনা করেছে।

আমি কাঁধের ব্যাগ নামিয়ে রাখতে রাখতে আন্টি বললেন তার চরম ক্ষুদা লাগছে, আমি বললাম হায় হায় আপনি কিছুই খান নাই, ফ্রিজে ত খাবার ছিলো গরম করে খেয়ে নিতেন। আন্টি মুখ ভেংচে বলল কি না কি রাখছ তার নাই ঠিক গরু ভেবে শুকর খেয়ে বসে থাকব তারপর।আমি বললাম আচ্ছা চলেন বাইরে কোথাও খাই।

৭ টায় বের হলাম বাসার গলি থেকে বের হয়ে প্রধান সড়ক ধরে কিছু দুর হাঁটলেই একটা রেস্টুরেন্ট আছে। এদের রান্না টা বেশ ভালো। ভারতীয় স্টাইলে কিছু আইটেম পাওয়া যায়। অ্যান্টি অবশ্য খুব বেশি পছন্দ করেছেন বলে মনে হয় না। অর্ধেক কোন রকম খেয়ে রেখে দিলেন। তারপর জিজ্ঞেস করলেনএইযে গ্লাসে করে খাচ্ছে এগুলো বিয়ার না? বিয়ার কত করে?আমি বললাম হ্যাঁ বিয়ার। এখানে অনেক সস্তা।আমি খাব।এখন?না। কিনে নাও… বাসায় খাবআমি কৌতুহলি দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছি দেখে ধমক দিলেনএভাবে তাকানোর কি হলো? নাও…

আমি দুইটা ৬৫০ এম এল এর বোতল দিতে বললাম। তারপর বিল চুকিয়ে জিজ্ঞেস করলাম কোথাও যাবেন আর?না অনেক গরম লাগছে একটু পড় অসস্থি লাগা শুরু হবে। চল বাসায় যাই।তারপর ধীর পায়ে হেঁটে হেঁটে বাসার দিকে এগোলাম।

বাসার লিফট এ উঠে অ্যান্টি আমার দিকে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন। আমার কেমন যেন ইতস্থত লাগছে। আমি অ্যান্টির দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস কলাম কিছু বলবেন? অ্যান্টি না বোধক মাথা নাড়লেন।

বাসায় ঢুকার আগেই অ্যান্টির মোবাইল বেজে উঠল। আঙ্কেল এর ফোন। রুমে ঢুকে এসি ছেড়ে ওড়না ছুড়ে ফেলে বিছানায় চিত হয়ে সুয়ে পরলেন। সোয়ার সময় তার মাই জোরা যে একটা দুলুনি খেলো… কি আর বলব।

আমি বাথরুমে গেলাম। অফিস থেকে এসে ফ্রেশ হই নাই। তাই সরাসরি গোসল করে ঘরের জামা কাপড় পরে নিলাম।

অ্যান্টির কথা বলা শেষ। একটু পড় আম্মু ফোন দিল। তিনি ত আমার বাসার পুঙ্খানু পুঙ্খ বিবরণ দেয়া শুরু করলেন। ফ্রিজের পাশে রাখা হুইস্কির বোতল দিকে ইশারায় বললেন, বলে দিব? আমি দুই হাত জোর করে বললাম না? তিনি অন্য দিকে টপিক নিয়ে গেলেন। আরও রাজ্যের কথা বললেন। তারপর আরও কয়েকজন কে ফোন করলেন। এই করতে করতে ১১ টা বাজালেন।

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল / 5. মোট ভোটঃ

No votes so far! Be the first to rate this post.

Leave a Comment