bengali choty মন্দের ভালো – 3: তাড়না by nextpage

bengali choty. সেদিন অফিস থেকে বের হবার আগে রুপালি কে ফোন করে জানিয়ে দেয়৷ যেখানে সে উপযাচক হয়ে রুদ্র কে বলে গেছে সেখানে এড়িয়ে যাবার সুযোগটা নিতান্তই কম। এসব ক্ষেত্রে মেয়েরা একচুল ছাড় দিতে নারাজ। গ্রাউন্ড ফ্লোরে এসে সেটাই সত্য হয়ে ধরা দেয়। রুপালি আগে থেকেই রুদ্রের বাইকের কাছে দাড়ানো। রুদ্র কাছে এসে দাঁড়াতেই স্বভাব সুলভ ভঙ্গিতে যুদ্ধ জিতে নেয়া হাসি ফুটে উঠে রুপালি ঠোঁটের কোনে আর ধীরে ধীরে সেটার রেশ ছড়িয়ে পরে সমস্ত মুখমন্ডলে। বাইক স্টার্ট করে রুপালি কে জিজ্ঞেস করে কোথায় যাবে৷

রুপালির উত্তর শোনে অনেকটা ভীমড়ি খাওয়ার অবস্থা, এমন কিছু বলবে সেটা চিন্তাতেই আনে নি। তবে মনে মনে খুশি হয়েছে সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। সত্যি বলতে আজ ওর মন বা দেহ কোনটাই সঙ্গমের জন্য প্রস্তুত না। বাইক এগিয়ে চলে ফুড কোর্টের দিকে৷ রুপালি কফি খাওয়ানোর আবদার করেছে। যেটা অফিস ক্যান্টিনেই পাওয়া যেত। অনেক কিছুই অনেক জায়গায় ঘটে না, যদি ঘটতো তবে জীবন এত বিচিত্র হতো না। সত্যিই মেয়েদের মন বুঝা খুবই মুশকিল। এক্ষেত্রে পুরুষের দোষটাও নেহাত কম নয়, কাম মানসিকতা বরাবরই বিপরীতের নারীটাকে ভোগের বস্তু হিসেবেই কল্পনা করে এসেছে।

bengali choty

কাম রিপুর তাড়নায় ভোগ করে গেছে কিন্তু তখন চেতনায় আসেনি ঐ প্রাণটারও একটা মন আছে সেটাতেও কিছু ইচ্ছে আছে কিছু অনুভূতির নিত্যকাল মৃত্যু ঘটে। আজ হয়তো খোলা বাতাসে নিজেকে ভাসাবার কোন আকাঙ্খা জেগে উঠেছে আনপ্রেডিক্টেবল মেয়েটার মনে। বাইকের মিররে রুপালির মুখটা বারবার দেখছিলো রুদ্র। ওর মুখ জুড়ে আষাঢ়ের মেঘ জমে আছে। উসকোখুসকো চুল গুলো এলোমেলো উড়ছে, দুরন্ত চোখ গুলোতে অনেক কিছুর উত্তর খোঁজে চলার চাপ৷

আনমণে যেভাবে বসে আছে যেকোন সময় ব্যালেন্স বিগড়ে পড়ে যেতে পারে। সতর্ক করতে কাঁধ টাকে নাড়িয়ে রুপালির ঘোর ভাঙে রুদ্র। ফুড কোর্টে পৌঁছে কফি আর স্যান্ডউইচের অর্ডার দেয় দিয়ে টেবিলে ফিরে আসে। ওর মনে কি চলছে সেটা জানার চেষ্টা চালায় রুদ্র তবে বারবারই বিষয়টা এড়িয়ে গেছে রুপালি। আজ আর সেটা নিয়ে কোন কথা হবে না অন্য কোনদিন বলবে সাফ জানিয়ে দেয়।

ভীষন গরম পড়েছে কদিন ধরে। এক পশলা বৃষ্টি হলে গরমের গুমোট ভাবটা একটু কাটতো। এর মাঝে জ্যামে বসে থাকা নরকের চেয়ে কম কিছু না। আজও একটু লেট হয়ে গেছে অফিসে পৌঁছাতে। নিজের রুমে গিয়ে টেবিলে বসতে না বসতেই পিয়ন এসে জানিয়ে যায় বসের রুমে যেতে৷ বস অনেকক্ষণ ধরেই অপেক্ষা করছে। গ্লাস থেকে দুই ঢোক জলে গলা টা ভিজিয়ে বসের রুমের দিকে অগ্রসর হয়৷ যাওয়ার পথে তনয়ার সাথে চোখাচোখি হয়। মিষ্টি হাসিতে গুড মর্নিং এর উইশ জানায়। bengali choty

মিষ্টি কালারের শার্টে ওকে পুড়ো তামান্না ভাটিয়ার মত লাগছে। ম্যাচিং করে লিপস্টিক দেয়া ঠোঁটে দৌড়ে গিয়ে একটা চুমো খাবার শখ জেগে উঠে। তবে আপতত এই ইচ্ছে টাকে সাইড পকেটে রেখে বসের রুমে ঢুকে যায় রুদ্র। মিনিট দশেক পর বড় একটা ফাইল হাতে রুম থেকে বেরিয়ে আসে। ফাইলটাতে ইন্টার্নদের বায়োডাটা সহ সব কাগজ পত্র আছে। ওদের কাজের উপর একটা ব্রিফ রিপোর্ট তৈরী করতে হবে আর সে অনুযায়ী আলাদা আলাদা ডিপার্টমেন্টে ওদের ট্রান্সফার করা হবে।

এর মাঝেই বস জানিয়ে রেখেছে কিছু দিনের মাঝেই নতুন ম্যানেজার জয়েন করবে। তাকে যেন রুদ্র সব চলমান প্রজেক্টের আপডেট গুলো দেখানোর জন্য আগেভাগেই ফাইল গুলো গুছিয়ে রেডি করে রাখে।টেবিলে বসে একে একে সব ইন্টার্নদের কোয়ালিফিকেশন গুলোতে চোখ বুলাচ্ছিলো রুদ্র। এবারের ব্যাচ টা সত্যিই মেধাবী স্কুল থেকে শুরু করে ফাইনাল পর্যন্ত নজরকাড়া মার্কস এচিভ করেছে৷ bengali choty

এদের প্র্যাক্টিক্যাল ট্যালেন্ট টা কাজে লাগাতে পারলে সেরা আউটপুট বের করে আনা সময়ের ব্যাপার মাত্র। তবে নতুন ম্যানেজার কেমন হয় সেটাই ভাবাচ্ছে রুদ্র কে, এতদিন ধরে ওর কাজের কোয়ালিটির জন্য অফিসে অনেক ছাড় পেত সেটা কি পরেও বজায় থাকে কি না সেটাই দেখার বিষয়। যদি হিতে বিপরীত হয় তবে ওর জন্য ভারী সমস্যা বটে।

স্কুল ছুটির ঘন্টা পড়া শুরু হয়ে গেছে। ধীরে ধীরে সবাই ক্লাস থেকে বের হচ্ছে৷ ভীড় এড়াতে ইচ্ছে করেই একটু পরে ক্লাস থেকে বের হয় বাবু আর জয়৷ কথা বলতে বলতে এগোতে থাকে সাইকেল রাখার জায়গাটার দিকে৷

-ভাই বইটা সাবধানে রাখিস। আগের বারের মত যদি ধরা পড়িস তবে কিন্তু আবার আমাকে দোষ দিতে আসিস না বলে দিলাম। এবার কিন্তু আমি জোর করিনি, তুই নিজের ইচ্ছেতে নিয়েছিস।

-এত সাধু সাজার চেষ্টা করিস না। এসবের প্রথম কে দেখাতে এনেছিল শালা সেটা মনে রাখবি আগে৷ তর প্যাঁড়া তেই পরেই তো এই সর্বনাশ টা হয়েছে৷ কিযে নেশা হলো কে জানে৷ সবসময় চোখের সামনে দৃশ্য গুলো ভাসতে থাকে। তুই নষ্টের মূল। bengali choty

কথা বলতে বলতে সাইকেলের কাছে পৌঁছে যায়। দুজন দুজনের সাইকেল নিয়ে বের হয়ে যাবে এমন সময় পিছন থেকে কেউ একজন ডেকে উঠে

-সাইকেল কিনলি সেটা বললি না একবারও। আমাকে বললে কি আমি নিয়ে নিতাম নাকি।

-(পিছন ফিরে) না জানানোর কি আছে। আজই বাবা কিনে দিয়েছে সেটা নিয়ে স্কুলে আসতে দেরি হয়ে গিয়েছিল। তুই তো তোদের সেকশনে চলে গিয়েছিলি নইলে তো ঠিকি দেখাতাম।

-নতুন সাইকেল কিনলি কিছু খাওয়াবি না?

-কি খাবি চল, মোড়ের দোকানে যাই।

-তোর সাইকেলে করে নিয়ে যাবি?

-(অবাক হবার অভিনয় করে) এ আমি কি শুনছিরে। ক্লাসের ফার্স্ট গার্ল নাকি আমার সাইকেলে চড়বে। তোর সম্মান থাকবে তো নাকি। bengali choty

-(মুখ গুমড়া করে) তুই সবসময় আমাকে এভাবে খোঁটা দিস কেন রে? আমি ফার্স্ট হয়েছি যেমন তুইও তো সেকেন্ড হয়েছিস আমি কি তাতে কিছু বলেছি৷ যা সামনের সেমিস্টারে আমি কম করে লিখবো তুই ফার্স্ট হয়ে যাবি খুশি তো।(বলেই হনহন করে হাটতে শুরু করে)

-কিরে চললি কোথায়? সাইকেলে যাবি না?

-থাক তোর সাইকেল নিয়ে, আমি হেঁটে চলে যাব।(সাইকেল থেকে নেমে দৌড়ে গিয়ে হাত ধরে ওকে থামায়)

-বাপরে রাই! তুই কবে থেকে এতো গোসা করা শিখলি? আমার ভুল হয়ে গেছে এই কান ধরছি৷ এবার চল সাইকেলে উঠে মোড়ের দোকানে যাবি।(টানতে টানতে সাইকেলের কাছে নিয়ে আসে)

-(পিছনের ক্যারিয়ারে বসেই বাবুর কান ধরে টান দেয়) মাঝে মাঝে মনে হয় তোর কান দুটো টেনে ছিড়ে দেই৷ bengali choty

-একবারে কান দুটো ছিড়ে দিলে পরে আর কিসে ধরে টানবি৷ (বলেই হু হু করে হাসতে থাকে বাবু যেই হাসি ক্ষণিকের মাঝেই ছড়িয়ে পড়ে তিনজনের ঠোঁটে)দুটো সাইকেলে তিনজনে স্কুলের মাঠ পেরিয়ে রাস্তায় উঠে যায়।

-এক কাপ কফি চলবে কি?(ফাইলটা বন্ধ করে মাথা তুলে তাকিয়ে মুচকি হাসি দিয়ে)

-এমন অফার অগ্রাহ্য করে কফি মগ হাতে দাড়ানো সুন্দরীর মন ভাঙার মত পাপ এই পাপী সইতে পারবে কি।

-(হাসতে হাসতে) ফ্লার্ট করছেন নাকি?

-যদি সেটা মনে করো তবে সেটাই। তুমি বুদ্ধিমতী মেয়ে তোমাকে ডিঙিয়ে যাওয়া কি চাট্টি খানি ব্যাপার।

-না না বাবা আপনার সাথে পারা যাবে না। এর চেয়ে কফিতে মনোনিবেশ করুন। bengali choty

-যথা আজ্ঞা। তবে একটা কথা বলতেই হচ্ছে, আজ তোমাকে দারুণ লাগছে। সাউথের নায়িকা তামান্না তোমার কাছে ফেল।

-এটা বেশি বেশি হয়ে গেল। আমি মোটেও এতটা সুন্দর না।

(মেয়েরা তাদের সম্পর্কে সুন্দর কমপ্লিমেন্ট শুনলে চেহারার মাঝে একটা ব্লাশিং করে সেটা তনয়ার চেহারাতেও ফুটে উঠেছে)-বিশ্বাস করলে না তো, বাইরে গিয়ে বাকিদের জিজ্ঞেস করো দেখো তারা কি বলে।

-ওটার আর দরকার নেই৷ একজন বলেছে সেটাই অনেক।

-বারে, এই মাত্র না বললে আমি বাড়িয়ে বললাম।

-তা একটু বলেছেন বৈকি। তবে আমি এতেই খুশি। আর কারও কমপ্লিমেন্ট লাগবে না।

-এই কারণেই ইন্টেলিজেন্ট গার্লদের আমি পছন্দ করি। খোলাখুলি কথা বলার মজাই আলাদা।  তা আজকের প্ল্যান কি? bengali choty

-কিসের প্ল্যান বুঝলাম না তো?

-আরে, বলছি অফিস আওয়ারে পরে কি কোন প্ল্যান আছে নাকি।

-না তো। অফিস শেষে সোজা বাড়ি। আপনার আছে কি?

-একা একা কি প্ল্যান হয়? তুমি রাজি থাকলে প্ল্যান হয়ে যাবে।

-কি প্ল্যান সেটা তো আগে জানি তারপর ভেবে বলছি।

-তেমন কিছুই না বাইকে একটা সর্ট ড্রাইভ হয়ে যাবে, দারুন একটা স্পট আছে সেটা তোমাকে দেখাতে নিয়ে যেতে পারি।

-ওয়াও দারুন একটা প্ল্যান। (হঠাৎ মুখটা চুপসে) তবে একটা প্রবলেম আছে। bengali choty

-আবার কি প্রবলেম।

-আমার সাথে আরেকজন আছে একসাথে যাওয়া আসা করি ওকে ম্যানেজ করতে হবে।

(আরে মেয়ে তোমাকে আজ বাইকে তুলতে একটু তো ম্যানেজ করতেই হবে, আজ বাইকে তুলি কদিন পর খাটেও তুলবো)-ও এই ব্যাপার। ওটা আমি দেখে নেব। তুমি মেন্টালি প্রিপারেশন নিতে থাকো।

-(স্ফীত হাসি দিয়ে) ওকে, আমি ওয়েট করবো।

শিকার কে আয়ত্ত সীমার মাঝে আনার পর শিকারীর চোখে মুখে প্রথম পদক্ষেপ সম্পূর্ণ করতে পারার খুশির আবহটা ফুটে উঠেছে। তনয়া চলে যাবার পর কফির মগটা নিয়ে স্বচ্ছ কাঁচের দেয়ালটার কাছে গিয়ে দাঁড়ায় রুদ্র। দিগন্তের ঈশান কোনটা অন্ধকার হয়ে আছে। এক পশলা বৃষ্টি নামলে শহুরে জীবনে একটু প্রাণ ফিরে পাবে। মূহুর্তের মাঝেই ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি নামে। বৃষ্টি দেখার ফাঁকে ভিতরের সুপ্ত সত্তা টার প্রভাবে চোখ দুটো হঠাৎ ছলছল হয়ে উঠে। bengali choty

পকেট থেকে মোবাইলটা বের করে একটা গান প্লে করেআজ এই বৃষ্টির কান্না দেখেমনে পড়লো তোমায়অশ্রু ভরা দুটি চোখতুমি ব্যাথার কাজল মেখেলুকিয়েছিলে ওই মুখ।

বেদনাকে সাথী করেপাখা মেলে দিয়েছ তুমিকতদুরে যাবে বলতোমার পথের সাথী হব আমিআজ এই বৃষ্টির কান্না দেখেমনে পড়লো তোমায়।

একাকিনী আছ বসেপথ ভুলে গিয়েছ তুমিকোন দূরে যাবে বলতোমার চলার সাথী হব আমি। bengali choty

পুরনো কিছু স্মৃতি ভেসে উঠে চোখের পাতায়। আজ সব আছে তবে কিছু একটা নেই। সে সময়য়টাতে সেই কিছু একটা ছিল তবে সেটা ধরে রাখার সামর্থ্য ছিল না। হয়তো তখন সেই সুযোগটাই ছিল না। বয়স আর কত হবে তখন, সেই বয়সে এত বড় সিদ্ধান্ত নেবার মত সাহসটা জোগাতে পারে নি৷ অন্তত বলতে তো পারতো কিন্তু সেটাও তো বলে হয়ে উঠে নি। তারপর সবকিছু কেমন পাল্টে গেল। বদলির চাকরিতে ঠিকানা বদলে গেল সাথে বাড়লো দূরত্ব টা। আচ্ছা শারীরিক দূরত্ব টাই ম্যাটার করে নাকি মনের।

সন্ধ্যাবেলা খেলার মাঠ থেকে বাসায় ফিরে সোজা কলপাড়ে চলে যায় বাবু। হাত মুখ ধুয়ে নিজের ঘরের দিকে যেতে যেতে ঠাকুর ঘরে মাকে ধুপ আর প্রদীপ ধরাতে দেখে এগিয়ে যায়। ঠাকুর ঘরে ঢুকে হাঁটু গেড়ে প্রণাম করে নেয়। পাশ ফিরে ছেলেকে দেখে ঠোঁটের কোনে চিলতে হাসির রেখা ফোটে উঠে। পরম মমতায় হাত বোলায় বাবুর মাথায়। মায়ের হাতের স্পর্শে যে শান্তি যে ভালবাসা পাওয়া যায় সেটার কাছে পৃথিবীর ভূ গর্ভে থাকা হীরে মানিকের মূল্য নিতান্তই তুচ্ছ। bengali choty

অঞ্জলি দেবী দু’হাতে ধুপতি আর প্রদীপ নিয়ে প্রতি ঘরে ঘরে সন্ধ্যা বাতি দেখায় সাথে ওলো ধ্বনি প্রতিধ্বনিত হতে থাকে দেয়ালে দেয়ালে। বাবু নিজের ঘরের দিকে পা বাড়ায়। আলনা থেকে গামছাটা নিয়ে হাত পা মুছতে থাকে। বড় মুখ করে বাবাকে বলেছে সামনের সেমিস্টারে প্রথম হবে। এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে হবে নইলে কোন মুখে বাবার সামনে দাঁড়াবে। সবচেয়ে বেশি ভয় নিজের থেকে মা কে নিয়ে। মা তো বড় আশা নিয়ে ওর পক্ষ নিয়ে কথা বলেছে। অঞ্জলি দেবী দুধের গ্লাস আর বিস্কুটের প্লেট নিয়ে ঘরে ঢুকে।

-কিরে বাবু এভাবে বসে আছিস কেন? শরীরটা খারাপ লাগছে নাকি?

-না মা, এমনি বসে।

-এই যে বলি প্রতিদিন এতোক্ষণ খেলার কি দরকার। সকাল থেকে স্কুল টিউশন করে বিকেলে এতো ছোটাছুটির পর শরীরে কি আর কুলোয় নাকি। নে বাবা বিস্কুট আর দুধ টুকু খেয়ে নে। bengali choty

(ছোট্ট কামড়ে বিস্কুট মুখে নিয়ে দুধের গ্লাসে চুমুক দেয়, খেতে খেতে আড় চোখে মায়ের দিকে তাকায়। আটপৌরে শাড়ি পরিহিতা সাধারণ মধ্যবিত্ত ঘরের মায়েরা যেমন হয়। কোন চাকচিক্য নেই চেহারায় কিংবা সাজসজ্জায়, কখনো হয়তো নিজেকে ঠিকমত আয়নায় দেখার সুযোগটাই হয়ে উঠে না। সন্তান, স্বামী, সংসার সামলাতেই দিন গুলো পাড় হয়ে যায়।

অন্যদের সুখ গুলোতেই নিজের সুখ খোঁজে নিয়েছে আজীবন। সন্তান কে একটু ভালো রাখতে তার শখ আহ্লাদ পূরণ রাখতে গিয়ে নিজের সবকিছু বিসর্জন দিতেও দ্বিতীয় বার ভাবে না)-মা তুমি আমাকে বড্ড ভালোবাসো তাই না।

-সে কিরে তোকে ভালোবাসবো না তো কাকে ভালোবাসবো। তুই আমার সাতরাজার ধন৷ (এক হাতে মুখটা ধরে আরেক হাতে চুল গুলো ঠিক করতে থাকে) আমার সবকিছুই তো তুই। তোকে ভালবাসবো না তো কাকে ভালবাসবো। (কপালে ছোট্ট চুমু) নে নে এখন পড়তে বস। তোর বাবার আসার সময় হয়ে গেছে। এসে যদি তোকে পড়তে না দেখে তবে আবার চেচামেচি করবে (বলেই মিষ্টি হাসির ধারা ছুটায়)। bengali choty

মা বেরিয়ে যাবার পর বাবু বিছানা ছেড়ে উঠে টেবিলের কাছে গিয়ে চেয়ার টা টেনে বসে টেবিলের পাশ থেকে সন্তপর্ণে ব্যাগটা বের করে নিয়ে আসে। গতকয়েকদিনে ব্যাগটাকে খুব সামলে রাখছে সে। ভিতরের নিষিদ্ধ বইটাকে নিয়ে খুব আগ্রহ তার কিন্তু এখনো সব দেখা হয়ে উঠেনি। চেইন খুলে ভিতর থেকে অন্য বইগুলো সরিয়ে ঐ বইটা বের করার জন্য হাতড়াতে থাকে কিন্তু একি বইটা কোথায়?

ব্যাগটা উল্টে পাল্টে বারবার দেখতে থাকে৷ কিন্তু না বইটা তো নেই। বাবুর আত্মা শুকিয়ে কাঠ। বইটা কোথায় যেতে পারে৷ ওর টেবিলে তো কেউ হাত দেয় না। তবে গেল কোথায়, বইয়ের তো আর পাখা গজায় নি। আবার মায়ের হাতে পরলো নাতো। যদি পরে থাকে তবে তো আর রক্ষা নেই। একি ভুল বারবার ক্ষমা করবে না মা। নিজের উপর রাগ হচ্ছে বাবুর কেন যে আবার এই বইটা আনতে গেল। কি যে হবে মাথা কাজ করছে না। আর কিছু ভাবতে পারছে না, মন খুঁত খুঁত করছে কখন না আবার মা ছোটে আসে আর আগের দিনের মত মারতে থাকে। bengali choty

উপায় থাকলে বাসা থেকেই এখনি পালিয়ে যেত৷ পুরো ঘরটা আবার ভাল করে খোজ করে কিন্তু না কোথাও নেই বইটা। হাত পা কাঁপছে বাবুর টেনশনে, শরীরটা ছেড়ে বসে পরে চেয়ারে। রাত বাড়ছে কিন্তু বাবুর সেদিকে খেয়াল নেই, ওর নজর দরজার দিকে কখন না আবার বেত হাতে এগিয়ে আসে ওর দিকে। হঠাৎ অঞ্জলি দেবীর হাঁক শোনা যায়৷

বাবুকে ডাকছে রাতের খাবার খেয়ে নিতে। ওর শরীরে উঠে দাড়াবার শক্তি নেই তবুও মায়ের ডাক ফেরাতে পারে না। গুটি গুটি পায়ে কাঁপতে কাঁপতে চাটাই টা টেনে বাবার পাশে বসে পরে। প্লেটে আঙুল ঘুরিয়ে যাচ্ছে বারবার মুখে খাবার তুলতে পারছে না। ছেলেকে এভাবে বসে থাকতে দেখে অঞ্জলি দেবী

-কিরে বাবু খাচ্ছিস না কেন, ভাত টা ঠান্ডা জল করবি নাকি। তোকে তো একটা কথা বলাই হলো না (এটা শুনে বাবুর প্রাণ ওষ্ঠাগত হবার উপায়)

-ক..কি..কিইই কথা?

-বিকেলে রাই এসেছিল তোর কাছে কি একটা বইয়ের জন্য। তুই তো বাসায় ছিলি না, কাল একবার দেখে আসিস গিয়ে তো বইটা পেল কিনা। bengali choty

বাইকে অপেক্ষা করছে কখন থেকে মেয়েটার আসার নাম নেই, পাখি আবার ফুড়ুৎ করে উড়াল দিলো নাতো। মোবাইল টা বের করে একটা কল করে তনয়ার নাম্বারে৷ রিং হচ্ছে, কানে একটা রিংটোনের আওয়াজ আসে৷ পাশ ফিরে তাকাতেই তনয়া মিষ্টি হাসি দিয়ে নিজেরে আগমনের বার্তা জানায়৷ কল টা ডিসকানেক্ট করে মোবাইলটা পকেটে পুরে তনয়াকে বাইকে উঠার আমন্ত্রণ জানায়। দুদিকে পা দিয়ে তনয়া চড়ে বসে, বাইকটা মেইন রোডে উঠে গেছে। দুপুরের বৃষ্টির সাক্ষী বহনে রাস্তায় এখনো জল জমে আছে।

এই এক সমস্যা আধ ঘন্টার বৃষ্টিতে আধ বেলা রাস্তা গুলো জলের নিচে চলে যায়। তনয়া বাইকে রুদ্রের থেকে একটু গ্যাপ রেখে বসে। এই নখরামি টা রুদ্রের ভাল লাগে না। স্পিডটা বাড়িয়ে হঠাৎ কষে ব্রেক ধরে, তাল সামলাতে না পেরে সামনের দিকে রুদ্রের পিঠে ধাক্কা খায় তনয়া। নারীর কোমল স্তনের পরশ পিঠে কেমন অনুভূতি আনে সেটা আর বলার আপেক্ষা রাখে না। বুকের উন্নত নরম মাংসপিণ্ডদ্বয়ের ছোঁয়াতে সারা শরীর শিহরিত হয়। এমন অনুভূতির জন্য বারবার ব্রেক কষা কোন অন্যায় কাজ হতেই পারে না। এটা পুরুষ সত্তার মৌলিক অধিকার। bengali choty

-(নেকি রাগী ভাব এনে) এটা কি হলো?

-দুজনে একটা রাইডে যাচ্ছি এতো দূরে দূরে থাকলে চলে? নাকি মাঝখানে অন্যকারও জন্য জায়গা রেখেছো।

-অন্যকারও জন্য জায়গা রাখতে যাবো কেন? আমি কি গা ঘেসে বসবো নাকি।

-বাইকে উঠে একটু গা ঘেসে না বসলে চালকের কত কষ্ট হয় সেটা বুঝবে না তো।

-তাই নাকি? তাহলে তো আর কষ্ট দেয়া চলে না।(রুদ্রের পিঠের সাথে নিজের বুক মিশিয়ে দেয়, দু হাত সামনে এনে রুদ্রের বুকের কাছে জড়িয়ে ধরে) এবার তো ঠিক আছে।

-একদম খাপে খাপ।

বাইক আবার ছোটে চলে দুরন্ত গতিতে। কাঁধে মাথা রেখে সামনের দিকে তাকায় তনয়া। বাতাসের ঝাপটা এসে লাগছে মুখে, কনের দুল গুলো বাতাসে নাচছে। বাতাসের তোড়ে ঠিকমত চোখ খোলে তাকাতে পারছে না। চুলের খোপা থেকে কাঠি টা বের করে নিতেই ঘন কালো কেশ বাতাসে ভেসে বেড়াতে থাকে। রুদ্রের শরীরের উষ্ণতা নিজের গায়ে অনুভব করে। বাইকে চড়ার এমন অভিজ্ঞতা আগে কখনো হয় নি। মন চাইছে দু হাত মেলে দিয়ে মুক্ত বিহঙ্গের মত উড়ে যেতে। মনে হচ্ছে যেন ঘুড়ির মত আকাশে উড়ছে সে। চোখ বন্ধ করে সময়টা উপভোগ করতে থাকে। bengali choty

শার্টের ভিতরে থাকা তনয়ার নরম স্তন দুটি চেপে আছে রুদ্রের পিঠে। বাইকের চলার গতিতে মাঝে মাঝে স্তন গুলো উপর নিচ করে ঘসে যাচ্ছে। নারীদেহের কোমর স্পর্শে শরীর গরম হতে শুরু করে৷ তনয়ার হাত দুটি রুদ্রের বুকের কাছে, আঙুল গুলো ওর বুকে মৃদু খেলা করছে। ইচ্ছে করে মাথে ঘুরিয়ে ওর কাধে থাকা তনয়ার গালে চুমু খেতে।

তবে তাড়াহুড়ো করার কোন কারণ নেই রুদ্রের কাছে। এর মাঝেই ওরা ওদের গন্তব্যে পৌঁছে যায়। বাইকটা কষে থামতেই চোখ খোলে তাকায় তনয়া। চারপাশে নানা জাতের গাছগাছালির সমাবেশ। দেখে মনে হচ্ছে এটা কোন নার্সারি প্রজেক্ট এরিয়া। তবুও কৌতূহল মেটাতে রুদ্রকে জিজ্ঞেস করে

-এটা কোথায় নিয়ে এলে, এত গাছগাছালি অপূর্ব লাগছে সবকিছু।

-খামারবাড়ি। এদিকের দিকটা নার্সারি, ভিতরে দিকে গবাদিপশুর খামার আর এর পিছনে বাগান।

সারি সারি করে রাখা নানা জাতের গাছের চারা। ফুল গাছের চারা গুলোতে নানা রঙের ফুল ফোটে আছে। লাল, হলুদ, সাদা নানা রঙের ফুলের সমারোহে মন ভ্রমরী নেচে উঠে। হাঁটতে হাঁটতে এগিয়ে যায় সামনের দিকে। ফুল বাগনের দিকে দৌড়াতে থাকে, গাছ গুলোর সামনে গিয়ে দু হাত ছড়িয়ে দিয়ে বাচ্চাদের মত ঘুরপাক খেতে থাকে। bengali choty

-আরে কি করছো পড়ে যাবে তো৷ চলো সামনে যাই কৃষ্ণচূড়া বাগানে আরও ভাল লাগবে।

রুদ্রের হাত ধরে-তাড়াতাড়ি চলো, আমার আর তর সইছে না। এতো সুন্দর একটা জায়গায় আমি আগে কখনো আসেনি কেন।

-তাতে কি, আজ তো আমি নিয়ে আসলাম।

কৃষ্ণচূড়া বাগানে এসে তো তনয়ার চোখ ছানাবড়া হবার জোগাড়৷ এমন মনোহর রূপ সে আগে কখনো দেখেনি। কৃষ্ণচূড়ার লাল ফুলে পুরো বাগান রক্তিম আভায় রেঙে আছে। ঝরে পড়া ফুল গুলো মাটিতে লাল কার্পেটের মত লাগছে। সেই ফুলের কার্পেট ধরে এগিয়ে যায় তনয়া হাত ধরা অবস্থায় পিছন পিছন রুদ্রও চলছে। একটা গাছের নিচে এসে দাড়ায়।

-এখানে দাঁড়াও তোমার কয়েকটা ছবি তুলে দেই৷মোবাইলটা বের করে পটাপট কতগুলো নানা ভঙিতে ছবি তুলে তনয়ার। ছবি তোলা শেষে কেমন হলো ছবি গুলো দেখার জন্য রুদ্রের কাছে ছোটে আসে। ছবি গুলো দেখতে দেখতে রুদ্রের বুকে সেধিয়ে যায় তনয়া। রুদ্রও ডান হাত প্রসারিত করে তনয়াকে আরও কাছে আসার পথ করে দেয়। ছবি দেখা শেষেও সরে দাড়ায় না তনয়া। bengali choty

-তোমার কেমন লাগলো জায়গাটা?

-(মাথা টা উঁচু করে) বলে বুঝাতে পারবো না। এমন সুন্দর জায়গায় আগে কখনো আসেনি। আজকের দিনটা স্পেশাল হয়ে থাকবে।

-তোমার খুশি দেখে নিজেকে ধন্য লাগছে। কারও খুশির কারণ তো হতে পারলাম এই ব্যার্থ জীবনে।

রুদ্রের দিকে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে তনয়া। চোখের পাতা পড়ছে না। চোখের পাতা গুলো হালকা নড়ছে হয়তো বাতাসে নয়তো অন্য কিছুর উসকানিতে। পুরো চেহারা জুড়ে খুশির ছটা সেই সাথে অন্যরকম এক আভার প্রকাশ যেটার আবেশে রুদ্রকে কাছে টানছে। ঠোঁট গুলো হালকা  নড়ছে, আর সময় নেয় না রুদ্র। নিজের ঠোঁটের মাঝখানে পুরে নেয় তিড়তিড় করে কাঁপতে থাকা তনয়ার স্পর্শকাতর ঠোঁট গুলো। পরম আবেশে উষ্ণতা ছড়িয়ে দেয় একে অপরকে। চুম্বনের প্রথম ঝটকায় শক্ত করে নেয়া তনয়ার শরীর ধীরে ধীরে নরম হতে থাকে৷

ওর শরীর এবার উত্তর দিতে থাকে। পায়ের আঙুলে ভর দিয়ে নিজেকে আরেকটু উঁচু করে নেয় যেন আরও ভালো করে চুম্বনের স্বাদ টা ভাগ করে নিতে পারে। তনয়ার দিক থেকে আরো গভীর হতে থাকে ঠোঁটের খেলা। ঠোঁটে ঠোঁটে ঘর্ষনে বাড়তে থাকে শরীরের তাপ। মস্তিষ্কের সব মনোযোগ যেন ঐদিকে ছোটে চলেছে। রসগোল্লা মুখে পুরে যেমন আয়েশে খাদক বন্ধু সেটার স্বাদ নিতে থাকে রুদ্র তনয়া উভয়েই নিজেদের ঠোঁটের স্বাদ ভাগ করে নিতে থাকে৷ bengali choty

নারী ঠোঁটে যে কি অমৃত সঞ্চিত আছে সেটা যে আহরন করে সে ব্যতীত এর মর্ম বুজতে পারা অতীব কঠিন। জিভের স্পর্শে শরীরে বিদ্যুৎ খেলতে থাকে। রুদ্রের জিভে তনয়ার জিভ আরও ভিজে উঠতে থাকে প্রেমরসে। রুদ্রের হাত এতক্ষণ শক্ত করে ধরে রেখেছিল তনয়ার বাহুমূল। সেখান থেকে হাত সরিয়ে হালকা করে স্পর্শ করায় নরম উন্নত বক্ষে। হঠাৎ এমন স্পর্শ শরীরে শিউরে উঠে৷ একটু সরে যায় রুদ্রের বুক থেকে। ঠোঁট গুলো আলগা হয়ে যায়। একটু সরে গিয়ে মাথা নিচু করে নেয় তনয়া।

-(চুম্বনের আবেশ তখনো শরীরের রন্ধে রন্ধে দৌড়াচ্ছে, সেটার প্রভাবে তনয়ার শরীর থর থর কাপছে। উত্তেজনা উষ্ণতায় কপাল জুড়ে বিন্দু বিন্দু ঘাম জমছে, এর মাঝেই কাঁপা কাঁপা গলায়) দেরি হয়ে যাচ্ছে, আমাকে আবার বাসায় ফিরতে হবে। বেশি দেরি হলে মা টেনশন করবে।

-তাইতো, সন্ধ্যা হয়ে আসছে। চলো তোমাকে পৌঁছে দিই।

বাইকের দিকে এগোতে থাকে রুদ্র পিছন পিছন সদ্য কাম শিহরনে জর্জরিত তনয়া।

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল / 5. মোট ভোটঃ

No votes so far! Be the first to rate this post.

Leave a Comment