bangali choti 2022 সেই বাড়িটা ! – 26 লেখক -বাবান

bangali choti 2022. কিছুক্ষন চেষ্টা করেও ঘুম এলোনা বুবাইয়ের. এসব কি দেখলো সে? এসবের মানে কি? কিছুই বুঝতে পারছেনা সে. বোঝার বয়সও হয়নি. কিন্তু যে মা তাকে এখন জড়িয়ে ঘুমিয়ে আছে সে একটু আগে পর্যন্ত ওসব কি করছিলো? আর মায়ের সাথে ওই লোকটাই বা কে ছিল? তপন কাকু? ওর মতোই তো মনে হলো. কিন্তু কাকু আর মা ওসব কেন করছিলো? জীবনে প্রথমবার স্নেহময়ী মায়ের ঐরকম একটা রূপ দেখে ভয় কান্না পাচ্ছিলো ওর. কিন্তু সেই ভয় থেকে বাঁচতে সেই মায়ের বুকেই মুখ লুকিয়ে ঘুমোনোর চেষ্টা করতে লাগলো বুবাই.

একসময় হারিয়ে গেলো ঘুমের দেশে. সকালে পাখির কিচির মিচির আওয়াজে ঘুম ভাঙলো বুবাইয়ের. চোখ ডলতে ডলতে উঠে বসলো ও. রাতের সেই অন্ধকার ফুরিয়ে ফুটেছে দিন. চারিদিক আলোয় আলোকিত. ভাইকে কোলে নিয়ে বসে মা তাকে খাওয়াচ্ছে. বুবাইকে দেখে বললো : উঠে পড়েছো সোনা….. যাও ফ্রেশ হয়ে এসো. একটু পরেই বাবা ফিরে আসবে. যাও. বিছানায় দাঁড়িয়ে মায়ের গলা জড়িয়ে ধরলো বুবাই. স্নিগ্ধাও ছেলের নরম গালে চুমু খেয়ে বললো : সোনা বাবু আমার. যাও. বিছানা থেকে নেমে নীচে ফ্রেশ হতে চলে গেলো সে.

bangali choti 2022

নীচে এসে দেখলো মালতি মাসি রান্নায় ব্যাস্ত. আজ ঘুম থেকে উঠতে বেশ দেরি হয়ে গেছে ওর. তাড়াতাড়ি কলঘরে ঢুকে গেলো. কিছুক্ষন পর বেরিয়ে এসে সামনের দিকে এগিয়ে যাবে বলে পা বাড়িয়েছে মনে হলো কেউ যেন ওর নাম ধরে ডাকলো. পেছন ফিরে দেখতে যাচ্ছিলো তখনি সামনে থেকে আওয়াজ এলো কি? বুবাই এখানে দাঁড়িয়ে কেন? বুবাই দেখলো মালতি হাসি মুখে দাঁড়িয়ে আছে. বুবাই হেসে বললো :না কিছুনা. বলে একবার পেছনে ফিরে চাইলো কিন্তু কেউ নেই. মালতির হাতে সকালের খাবার ছিল. বুবাই মালতির সাথে উপরে উঠতে লাগলো.

বুবাই ঘরে ঢুকে দেখলো মা নিজের ম্যাক্সি ঠিক করছে. অর্থাৎ ভাইকে দুধ খাওয়ানো শেষ. ভাই শুয়ে শুয়ে হাত পা নাড়ছে. বুবাই ছুটে গিয়ে ভাইয়ের সঙ্গে খেলতে লাগলো. মালতি ঘরে ঢুকে খাবার প্লেট দুটো রেখে পেছনে ফিরে বেরোতে গিয়ে থেমে গেলো. আর স্নিগ্ধা বুবাই দুজনেই দেখলো মালতির মুখে একটা হাসি ফুটে উঠলো. মালতি বললো : আরে ওই তো দাদাবাবু এসেছে গেছেন. বুবাই ভাবলো দাদাবাবু তো মালতি মাসি বাবাকে বলে. তারমানে বাবা এসেছে গেছে !!  বুবাই ছুটে দরজার কাছে গিয়ে দেখে সত্যিই বাবা !! bangali choti 2022

দৌড়ে চলে গেলো বাবার কাছে. ছেলেকে কোলে তুলে নিয়ে আদর করতে লাগলো অনিমেষ. কেমন আছো সোনা? জিজ্ঞেস করলো বাবা. বুবাই বাবার গালে হামি খেয়ে বললো : আমি ভালো আছি. তুমি কাল ছিলেনা তাই ভালো লাগছিলোনা. অনিমেষ হেসে বললো : এইতো আমি এসে গেছি. আজ সারাদিন তোমার সাথে থাকবো.  স্নিগ্ধাও বেরিয়ে এসেছে. মুখে হাসি. এগিয়ে এলো স্বামীর কাছে. স্নিগ্ধাকে বুবাইকে দেখে মনটা আনন্দে ভোরে উঠলো অনিমেষের. মালতি সামনে দাঁড়িয়ে. নইলে স্নিগ্ধাকেও জড়িয়ে ধরতো এখনই. স্নিগ্ধাকে জিজ্ঞেস করলো : ঠিক আছোতো? কোনো অসুবিধা হয়নি তো?

স্নিগ্ধা শুধু মাথা নেড়ে না জানালো আর স্বামীর দিকে চেয়ে মিষ্টি হাসি দিলো. বুবাইকে কোলে নিয়ে ঘরে এগিয়ে যেতে লাগলো ওর বাবা. আর স্নিগ্ধা ওর কাঁধ থেকে ব্যাগটা নিয়ে এগিয়ে চললো. বুবাইকে নীচে নামিয়ে নিজের আরেক সন্তানকে কোলে তুলে আদর করতে লাগলো. ঐটুকু বাচ্চাটাও বাবাকে দেখে হেসে উঠলো. একেই বলে টান.

মালতি বললো : যাক দাদাবাবু আপনি ফিরে এসেছেন. বুবাই আপনাকে দেখতে না পেয়ে একটু মনমরা ছিল. আপনি খাবেন তো? অনিমেষ বললেন : হ্যা…. সেই সকালে বেড়িয়েছি না খেয়ে. খিদে পেয়ে গেছে. তাড়াতাড়ি দাও তো কিছু. মালতি :এই এক্ষুনি নিয়ে আসছি বলে নীচে চলে গেলো. bangali choti 2022

স্নিগ্ধা বাবাইকে অনিমেষের হাত থেকে নামিয়ে তার কাঁধে হাত রেখে জিজ্ঞেস করলো : সব ঠিকঠাক ছিল তো? স্নিগ্ধার হাতে আলতো চাপ দিয়ে অনিমেষ বললো : হুম. দুজন দুজনের দিকে তাকিয়ে রইলো কিছুক্ষন. বুবাই এসে বাবাকে জড়িয়ে ধরে বললো : বাবা তুমি আমার জন্য চকলেট এনেছো? অনিমেষ ছেলের মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে বললো : শুধু চকোলেট নয় আরও কিছু এনেছি. কিন্তু এখন নয়. যাও আগে তুমি খেয়ে নাও. আমিও ফ্রেশ হয়ে আসি একটু. খিদে পেয়েছে. স্নিগ্ধাও বললো : হ্যা…. যাও.

আজ সারাদিন রেস্ট নাও. খুব ধকল গেছে কালকে. একি? আমার ফটোটা ফ্রেম থেকে বার করা কেন? নিজের ছবিটার দিকে তাকিয়ে অনিমেষ স্নিগ্ধাকে জিজ্ঞাসা করলো. স্নিগ্ধা  সঙ্গে সঙ্গে ছবিটার দিকে তাকিয়ে নিজের ভুলটা বুঝতে পেরে একটু ঘাবড়ে গেলো. কি বলবে সে স্বামীকে? তার ছবিটা সে নয় এক শয়তান গুন্ডা ফ্রেম থেকে বার করে নীচে ফেলে তার ওপর পা দিয়ে দাঁড়িয়ে তারই স্ত্রীকে সুখের সাগরে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে. যদিও তখন সেই দৃশ্যটা স্নিগ্ধা নিজেও উপভোগ করেছিল. bangali choti 2022

তবু এখনকার কথা আলাদা. কি বলবে বুঝতে না পেরে তাড়াতাড়ি করে বললো : ওটা….. ও.. ও… ওটা কিছু না. ফ্রেমটার ভেতরে ধুলো ঢুকেছিলো তাই কালকে ছবিগুলো বার করে ফ্রেমটা মুচ্ছিলাম. পরে তোমারটা ঢোকানোর সময় বাবাই কেঁদে উঠলো তাই ওকে নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পড়লাম.  আর ওদিকে নজরই যায়নি. অনিমেষ ওহ.. আচ্ছা বলে জামা খুলতে লাগলো. স্নিগ্ধা ওর জন্য বাড়ির জামা প্যান্ট বার করে দিলো সেগুলো নিয়ে অনিমেষ নীচে নামতে লাগলো. ওদিকে তপন মালতিকে নামতে দেখে বললো : কি? এতদিন তাড়াহুড়া করে নামছো কেন? কি হলো?

মালতি যেটা বললো সেটা শুনে তপন বাইরে হাসির ভাব প্রকাশ করলেও ভেতর ভেতর রেগে উঠলো. মালতি বললো : ভালোই হলো বুবাই একা একা ছিল. এবার বাবার সাথে থাকতে পারবে. যাই….. দাদাবাবুর জন্য খাবার নিয়ে উপরে দিয়েছি আসি বলে  মালতি রান্নাঘরের দিকে পা বাড়ালো. তপন অর্থাৎ ভূপাত মনে মনে বললো : শালা অনিমেষ এর বাচ্চা…… আর কটাদিন বাইরে থাকতে পারলিনা? যদি কটাদিন বাইরে কাজে ঘুরে বেড়াতিস সেই কটাদিন তোর ওই সুন্দরী বৌটাকে আয়েশ করে সুখ দিতাম. bangali choti 2022

তোর বউটা সত্যিকারের মরদের সাথে মস্তি করতো. আর সবচেয়ে বড়ো কথা তোর বৌটাকে যে প্রধান কাজের জন্য ব্যবহার করতে চলেছি সেই কাজে আরও অনেকটা অগ্রসর হতে পারতাম. কিন্তু তার মাঝেই ফিরে এলি. ঠিক আছে……. আমিও ভূপাত. আমিও কম যাইনা. দেখ কি কি করি আমি.  তোর আর তোর ছেলেগুলো শুধু দেখবে কিন্তু বুঝতে পারবিনা তোরা কিচ্ছু. আর যখন বুঝবি তখন অনেক দেরি হয়ে যাবে হি… হি.

আরে তপন যে. একটা গলার আওয়াজে তপন চিন্তা থেকে বাস্তবে ফিরে এলো. মুখ ঘুরিয়ে দেখলো অনিমেষ বাবু নেমে আসছে. তপন খুশি হবার অভিনয় করে হেসে বললো : আরে দাদা ফিরে এসেছেন ! কখন এলেন?

অনিমেষ : এইতো…. একটু আগেই.

তপন : যাক…. তা যে কাজে গেছিলেন সেটা ঠিকমত মিটেছে তো?

অনিমেষ : হ্যা…..তা মিটেছে. সত্যিই কালকের দিনটা যা গেলো. উফফফফ. আজকে তাই ভাবছি সারাদিন বিশ্রাম নেবো. কাল থেকে আবার যাবো হাসপাতালে. আরে ভাই আমিও তো মানুষ নাকি? হা…. হা … bangali choti 2022

তপন : তাইতো… তাইতো. আপনি নিজে ঠিক না থাকলে আমাদের গ্রামের রুগীদের কে দেখবে? আপনি একদম বিশ্রাম নিন.

অনিমেষ : কালকে সত্যি একটু চিন্তিত ছিলাম বুবাইদের নিয়ে. আমি নেই তার ওপর আবার ওরা এই অচেনা অজানা বাড়িতে. তাই……… যাক সব ভলোয় ভালোয় মিটে গেছে. আর চিন্তা নেই.

তপন : আপনার চিন্তা করাটা স্বাভাবিক. কিন্তু আমি কাল রাতে পাহারা দিয়েছি. কোনো অসুবিধা হয়নি. আর আমি থাকতে হতেও দেবোনা. আমি ওনাদের খেয়াল রেখেছিলাম.

অনিমেষ : সত্যিই আপনার মতো একজন ছিল বলেই ভরসা ছিল. নইলে ওদের এখানে ছেড়ে যেতাম না. আচ্ছা আমি যাই একটু ফ্রেস হয়ে বিশ্রাম নি. চলি হ্যা.

তপন অনিমেষকে কলঘরে যেতে দেখে মনে মনে হেসে বললো : ওরে গাধা…… আমি ছিলাম বলেই তো তোর সব গেলো. যাকে করেছিস ভরসা সেই তোর গুপ্তধন লুটে করবে সব ফর্সা হি… হি. দেখ এবার আমি কি করি. তোর ওই রসালো সুন্দরী বৌটাকে আমার জালে ফাঁসিয়ে নিয়েছি এবার শুধু আসল কাজ সারার অপেক্ষা. তারপর তোর বৌ চিরদিনের জন্য আমার হয়ে যাবে. আর তুই বৌ বাচ্চা হারিয়ে পাগল হয়ে রাস্তায় ঘুরবি হি… হি. bangali choti 2022

সকালের খাবার খাওয়া শেষ হলে অনিমেষ বাবু বসলেন গিফট বিতরণ নিয়ে. প্রথমেই বড়ো ছেলের জন্য চকোলেট আর দুটো বই বার করে ওকে দিলেন. বই আর চকলেট পেয়েতো বুবাই খুব খুশি.  এই ছুটিতে সে এই বইগুলো পরেই কাটাবে. এসবের আনন্দে সে ভুলেই গেলো কালকের দেখা সেই ভয়ঙ্কর দৃশ্যগুলো. সে বাচ্চা মানুষ. যেদিকে আনন্দ সেদিকেই তার মন চলে যায়. একটা বই খুলে সোফায় বসে পড়তে লাগলো. ভুতের গল্পের বই. বেশ অনেক গুলো গল্প আছে. ওদিকে অনিমেষ বাবু ছোট ছেলের জন্য দুটো জামা কিনেছিলেন সেগুলো ছেলের মায়ের কাছে দিয়েছি দিলেন.

তারপর ছেলেদের গিফট দেওয়ার পর ছেলেদের মায়ের পালা. খুব সুন্দর দুটো নাইটি আর সালোয়ার কামিজ কিনেছিলেন সেগুলো বৌয়ের হাতে দিলেন. সত্যি… মানুষটার চয়েস আছে. যেগুলো পড়লে সত্যিই স্নিগ্ধাকে দারুন মানাবে সেরকম বেছেই এনেছেন. স্নিগ্ধা যদিও স্বামীকে আদর করে বকে বললো এত কিছু আনার কি দরকার ছিল তবু মনে মনে খুবই খুশি. এই লোকটাকে বিয়ে করে সে কোনভুল করেনি. কি অদ্ভুত তাইনা? তপনের সাথে মিলন রত অবস্থায় তার মনে হচ্ছিলো এরকম তাগড়াই একটা লোক কেন তার স্বামী হলোনা আবার এখন ভাবছে তার স্বামীর মতো স্বামী হয়না. bangali choti 2022

এরম একজনকে নিয়ে করে সে ধন্য. সময় সময়ে মানুষের চিন্তা কেমন পাল্টে যায়. তবেইনা সে মানুষ. স্নিগ্ধা নাইটি পেয়ে মনে মনে হাসলো. আগের দিনই ওই হারামিটা তার নাইটিটা যেভাবে ছিঁড়ে ফালা ফালা করে দিলো তার বদলে আজ দু দুটো নতুন নাইটি পেয়ে গেলো. দুপুরে মুরগি রান্না হলো. স্নিগ্ধা মালতিকে বলে তপনকে দিয়ে মাংস আনালো. মালতি সত্যিই দারুন রেঁধে ছিল. পেট পুরে খেলো সবাই. বাবা যেহেতু ফিরে এসেছে তাই বুবাইয়ের মা বললো ওকে নিজের ঘরে শুতে. এতে কোনো অসুবিধা নেই.

সারা দুপুর নতুন বই পরে কাটাবে. সবাই যে যার ঘরে শুতে চলে গেলো. একটা দারুন গল্প মনে দিয়ে পড়ছে বুবাই. কতক্ষন সময় পেরিয়ে গেছে সেদিকে খেয়াল নেই ওর. হঠাৎ আবার ও শুনতে পেলো কে যেন আবার ওর নাম ধরে ডাকছে. প্রথমে মনের ভুল ভাবলেও দ্বিতীয় বারের ডাকে মাথা তুলে এদিক ওদিক চাইলো ও. এদিক ওদিক চাইতে চাইতে জানলায় চোখ পড়তেই  ওর মনে হলো কেউ যেন সরে গেলো জানলা থেকে. বুবাইয়ের গায়ের লোম দাঁড়িয়ে গেলো. একেই সে ভুতের গল্প পড়ছে তারওপর ওরকম একটা দৃশ্য দেখলে যে কেউ ভয় পেয়ে যাবে, ও তো ছোট্ট বাচ্চা. bangali choti 2022

কিন্তু সেই মানুষটা যখন আবার জানলার সামনে এলো তখন বুবাই দেখলো ওটা আর কেউ নয় রাজু. হাঁপ ছেড়ে বাঁচলো ও.  বুবাই বই রেখে জানলার সামনে এগিয়ে গেলো. রাজু হাসছে. বুবাই বললো : এরকম ভয় দেখালে কেন? রাজু বললো : প্রাক্টিস করাচ্ছি যাতে পরে আর তুমি ভয় না পাও. বুবাই মাথামুন্ডু কিছুই বুঝলোনা. সে জিজ্ঞেস করলো : মানে?  রাজু হেসে বললো : সে পরে বলছি. আগে এসো আমরা ছাদে যাই. বুবাই বললো : ছাদে কেন? ঘরেই গল্প করি এসো. বাবা আমার জন্য বই কিনে এনেছে.

চলো একসাথে পড়ি. রাজু মুচকি হেসে বললো : ভুতে আমার খুব ভয় আমি ওসব পড়িনা. বুবাই অবাক হয়ে গেলো. ও জিজ্ঞেস করলো : তুমি জানলে কিকরে আমি ভুতের বই পড়ছিলাম? রাজু বললো : বাহ্… ঐযে মলাটে ভুতের ছবি দেওয়া. ওটা দেখেই বুঝলাম. আর ঘরে বসে ঠিক হবেনা. কেউ চলে এলে অসুবিধা হবে. তার চেয়ে ছাদে চলো. জরুরি কথা আছে.  বুবাই আবারো অবাক. জানলা থেকে খাট বেশ দূরে. তা ছাড়া বুবাই উল্টোদিকে ঘুরে বই পড়ছিলো কখন দেখলো রাজু? যাকগে দেখেছে যখন হোক. bangali choti 2022

দরজা খুলে রাজুর সাথে বেরিয়ে ছাদে যেতে লাগলো ওরা. তিনতলায় উঠে রাজু হঠাৎ একটা ঘরের সামনে দাঁড়িয়ে কিছুক্ষন সেই ঘরটার দিকে চেয়ে রইলো. বুবাই ওকে জিজ্ঞেস করলো কি হয়েছে. উত্তরে কিছুনা বলে ছাদে উঠতে লাগলো রাজু. বুবাই ওর পেছন পেছন উঠতে লাগলো. ছাদে ওদের কিছু জামাকাপড় শুকোতে দেওয়া ছিল. সেগুলো হাওয়ায় নড়ছিলো. রাজু আর বুবাই গিয়ে ওই গাছের ছায়ার তলায় গিয়ে বসলো. রাজুর মুখে কোনো কথা নেই. ওকে চুপচাপ থাকতে দেখে বুবাই বললো : কিগো? কি হয়েছে? রাজু ওর দিকে তাকিয়ে হেসে বললো :কিছুনা. আচ্ছা বুবাই……. তুমি ভুতের গল্প পড়ছিলে.

তোমার ভয় লাগছিলো? বুবাই হেসে বললো : তা একটু লাগছিলো. কেন? রাজু একদৃষ্টিতে বুবাইয়ের দিকে তাকিয়ে আবার জিজ্ঞেস করলো : বিশ্বাস করো ভুতে? বুবাই হেসে বললো : ধুর ভুত বলে আবার কিছু হয় নাকি?  বাবা বলে ওসব কিছু গল্পকথা. ভুত বলে কিস্সু নেই. রাজু হেসে বললো : আমিও তাই ভাবতাম. আচ্ছা ভাবো যদি বলি আমি ভুত…… তাহলে তুমি ভয় পাবে? বুবাই হেসে বললো : ধ্যাৎ…তুমি ভুত হবে কেন?  তুমি তো রাজু. এইতো আমার সাথে কেমন বসে গল্প করছো. bangali choti 2022

তাছাড়া ভুত দিনে বেরোয়না, রাতে বেরোয়. আমি গল্পে পড়েছিলাম. বুবাইয়ের দিকে তাকিয়ে রইলো রাজু. সত্যি কি নিষ্পাপ বাচ্চাটা. সব কিছুই কেমন হালকা ভাবে হেসে উড়িয়ে দেয়. রাজু বুবাইকে কাছে টেনে ওর মাথায় হাত বুলিয়ে বললো : আজ থেকে আমি তোমার দাদা. তুমি আমায় রাজুদা বলে দেক কেমন. বুবাই হেসে বললো আচ্ছা. রাজু এবার জিজ্ঞেস করলো: কাল আমার কথা মতো মায়ের সাথে শুয়েছিলে? বুবাই মাথা নেড়ে হ্যা বললো. রাজু মুচকি হেসে বললো : তাহলেতো কিছু তোমার নজরে পড়েছে. কি পড়েনি?

রাজুর কথা শুনেই কালকের সব ভয়ঙ্কর দৃশ্য গুলো মনে পরে গেলো বুবাইয়ের. রাজুর হাত ধরে ভয় ভয় বললো : জানো রাজুদা…. কালকে আমি অদ্ভুত সব জিনিস দেখলাম. মা ওসব কি করছিলো রাজুদা? তুমি বলতে পারবে? তুমি যেমন বলেছিলে তোমার মাকে তোমার জেঠু কিসব করেছিল অনেকটা ওরকম. ওসবের মানে কি রাজুদা?রাজু বুবাইকে বললো : আমাকে সব কিছু খুলে পরিষ্কার করে বোলো. যা যা দেখেছো সব বলো. bangali choti 2022

বুবাই রাজুকে বলতে শুরু করলো কালকের দেখা ঘটনা —

তোমার কোথ মতো আমি কালকে মায়ের সাথে ঘুমিয়ে ছিলাম. সব কিছু ঠিকঠাক ছিল. হঠাৎ কিসের একটা শব্দে ঘুমটা ভেঙে গেলো আমার. মনে হলো মা কেমন করে যেন লাফাচ্ছে. কিছুর ওপর বসে মা লাফাচ্ছে. আমি মাকে ডাকতেই মা আমাকে জড়িয়ে শুয়ে রইলো. মাঝে মাঝে মা কেঁপে কেঁপে উঠছিলো. তারপর একসময় আমি ঘুমিয়ে পড়লাম. তারপর হঠাৎ বাথরুমের কারণে ঘুম ভেঙে গেলো. খুব জোরে হিসু পেয়েছিলো. মাকে ডাকতে যাবো ভাবলাম দেখি মা পাশে নেই. আমি ভাবলাম মা কোথায় গেলো? বোধহয় নিচেই কলঘরে গেছে.

তাই আমি বিছানা থেকে নেমে দেখি দরজা খোলা. মানে মা সত্যিই বেরিয়েছে. আমি সাহস করে নীচে নামতে লাগলাম. বাব্বা কি অন্ধকার ছিল. নীচে কলঘরের বাইরের বাল্বটা জ্বলছিল বলে রক্ষে. বাথরুমে গিয়ে কোথাও কোনো রকম শব্দ পেলামনা. একবার মাকে ডাকলামও কিন্তু কোনো জবাব পেলাম না. আমি একা ভেবে ভয় লাগলো. তাড়াতাড়ি হিসু করে বেরিয়ে দৌড়ে ঘরে চলে এলাম. কিন্তু এসে দেখি মা নেই. তাহলে মা গেলো কোথায়? আমি ভয় পেয়ে গেলাম. আমি কিচ্ছুক্ষন অপেক্ষা করে সাহস করে আবার বাইরে বেরিয়ে এলাম. bangali choti 2022

বারান্দায় দাঁড়িয়ে ভাবছি কি করবো হঠাৎ ওপর থেকে একটা আহহহহহ্হঃ করে আওয়াজ এলো. শুনে মনে হলো আওয়াজটা মায়ের. তাহলে মা ওপরে গেছে. এই ভেবে দৌড়ে তিনতলায় গেলাম কিন্তু সেখানেও মাকে দেখতে পেলাম না. আমার এবার সত্যিই কেমন ভয় ভয় হতে লাগলো. মাকে পাচ্ছিনা কোথাও. তারপর দেয়ালে আলো পড়েছে লক্ষ করলাম. মানে ছাদ খোলা. হঠাৎ দেয়ালে কিছু একটা ছায়া পরলো দেখলাম. আমি ভাবলাম তাহলে কি মা ছাদে? তাই হবে. এই ভেবে আমি ছাদে ওঠার সিঁড়িতে পা বাড়ালাম.

যত উঠতে লাগলাম ততো মায়ের আওয়াজ পেতে থাকলাম. মানে মা ছাদেই আছে. কিন্তু এত রাতে মা ছাদে কি করছে ভাবতে ভাবতে যেই শেষ সিঁড়িটা উঠেছি তখনি দেখলাম মা ছাদের একটা ধারে কিসের ওপর বসে লাফাচ্ছে. বেশ জোরে জোরে লাফাচ্ছে. মায়ের পেছন দিকটা দেখতে পাচ্ছিলাম. তাই মা আমায় দেখতে পায়নি. আমি মায়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলাম তখনি দেখলাম একটা হাত নীচে থেকে ওপরে উঠে মায়ের পিঠে হাত বোলাতে লাগলো. আমি দাঁড়িয়ে গেলাম. দেখলাম আরেকটা হাত মায়ের পিঠে এলো. bangali choti 2022

দুই হাত মায়ের খোলা পিঠে হাত বোলাচ্ছে. মানে মা কারোর ওপর বসে আছে. আমি কি মনে হতে পিছিয়ে দরজার কাছে চলে গেলাম আর লুকিয়ে দেখতে লাগলাম. দেখলাম মা সামনের দিকে ঝুঁকে গেলো আর হাত দুটো মায়ের পেছনে ঠাস ঠাস করে থাপ্পড় মারতে লাগলো. মা তাতে হেসে উঠলো. তারপর চকাম চকাম করে কিসব আওয়াজ পেলাম. এরপর দেখলাম মা লোকটার ওপর থেকে নেমে নীচে শুয়ে পরলো আর সেই লোকটা মায়ের ওপর উঠে উল্টো হয়ে বসলো. বাব্বা কি লম্বা লোকটা রাজুদা. মনে হচ্ছিলো কোনো দানব.

লোকটা একটা অদ্ভুত কাজ করতে লাগলো. নিজের নুনুটা মায়ের মুখের সামনে দোলাতে লাগলো. জানো রাজুদা লোকটার নুনুটা কি বড়ো ! কই আমারতো ওতো বড়ো নয়. বড়োদের নুনু কি অতই বড়ো হয়? যাইহোক মা দেখলাম দুই হাতে ওই নুনতা ধরে কেমন নাড়তে লাগলো আর মুখে নিয়ে নিলো. ইশ……. ওটা কেউ মুখে নেয় নাকি. মায়ই আমাকে বলেছে হিসু করে হাত ধুয়ে খাবার খেতে আর মা এদিকে নিজেই ওই লোকটার নুনুটা চুক চুক করে চুষতে লাগলো. লোকটার মুখ থেকে আহঃ আহহহহহ্হঃ এমন সব আওয়াজ আসছিলো. bangali choti 2022

একটু পরে দেখলাম লোকটা মাকে তুলে দাঁড় করালো. তারপর মাকে নিয়ে এলো এই এখানে যেখানে আমরা বসে আছি. এই সামনের ডালটা ধরে মা দাঁড়ালো. আর ওই লোকটাকে দেখলাম মায়ের পেছনে গিয়ে কি যেন করলো. তারপর হঠাৎ মা আহহহহহ্হঃ করে উঠলো. আমি ভাবলাম মা ব্যাথা পেয়েছে. হয়তো লোকটা মাকে মারছে. খুব ভয় লাগলো. কিন্তু দেখলাম মায়ের মুখে হাসি. মা হাসছে আর লোকটাকে কি যেন বলছে. সেটা শুনে লোকটা মায়ের দুদু দুটো চেপে ধরে পেছন থেকে কাঁপতে শুরু করলো আর মাকেও দেখলাম কাঁপতে.

কেমন সব অদ্ভুত আওয়াজ আসছিলো ওদের ওসব করার ফলে. মা ওই ডালটা ধরে লোকটাকে চিল্লিয়ে বলছিলো আরও জোরে করো আরও জোরে আমার হুকুম….. এইসব. আর সেটা শুনে লোকটা আরও দ্রুত গতিতে নড়তে শুরু করলো. আমি শুধু এইটুকু বুঝলাম মাকে লোকটার কষ্ট দিচ্ছেনা, মা চাইছে বলেই লোকটা এসব করছে. মা দেখলাম মুখ ঘুরিয়ে লোকটার দিকে তাকালো. লোকটাও মায়ের মুখে মুখ লাগিয়ে মাকে চুমু খেতে লাগলো. তারপর আরও আজব জিনিস দেখলাম জানো রাজুদা. লোকটা মাকে ঐভাবেই নিয়ে ছাদে হাঁটতে লাগলো. bangali choti 2022

মা ঝুঁকে আর লোকটা পেছনে কোমর নেড়ে চলেছে. মায়ের দুদু টিপতে টিপতে লোকটার এগিয়ে চলেছে. মায়ের দুদু দিয়ে দুধ বেরিয়ে নীচে পড়ছে. একসময় ওরা ওই পুকুরের দিকটায় গিয়ে দাঁড়ালো. ঐখানে গিয়ে ওরা কিসব বলাবলি করছিলো শুনতে পাইনি. তারপর দেখলাম মা লোকটার বুকে চুমু খাচ্ছে, নীচে নীলডাউন হয়ে বসলো আর লোকটার ওই নুনুটা আবার হাতে নিয়ে নাড়তে লাগলো. লোকটা মায়ের মাথায় হাত দিতেই মা লোকটার হাত সরিয়ে দিলো আর শুনতে পেলাম মা বলছে আমি যতক্ষণ না বলবো ছোঁবেনা আমায়.

মা দেখলাম ওই নুনুটা নিজের দুদুর মদ্ধিখানে রেখে কিসব করতে লাগলো. লোকটা মায়ের দুদু দুটো হাতে নিয়ে নিজের নুনুটা ঐখানে ঘষতে লাগলো. এসব কি হচ্ছিলো আমি বুঝলাম না. একসময় লোকটা মাকে কোলে তুলে নিলো. মায়ের পা দুটো ধরে কোলে তুলে নিলো. মা লোকটার ঘর ধরে রইলো. মা দেখলাম লোকটার নুনুটা নিজের নুনুর ভেতর ঢুকিয়ে নিলো. এ আবার হয় নাকি গো? লোকটার ওই অতবড় নুনুটা মায়ের ভেতর কোথায় হারিয়ে গেলো. তারপর দেখলাম লোকটা কোমর নাড়াচ্ছে আর ওই লোকটার নুনুটা একটু করে বেরিয়ে আসছে আবার মায়ের ভেতরে ঢুকে যাচ্ছে. bangali choti 2022

মা হাসছে. মাকে দেখে আমার কেমন ভয় হচ্ছিলো. আমি কি সত্যিই মাকে দেখছি? নাকি স্বপ্ন দেখছি? বুঝতে পারছিলাম না. হঠাৎ মা লোকটাকে চিল্লিয়ে বলতে লাগলো : আমার বেরোবে…… আমার বেরোবে. লোকটা দেখলাম সেই শুনে আরও জোরে কোমর নাড়াতে শুরু করলো. কেমন পচ পচ পচ পচ শব্দ আসতে লাগলো ওদের থেকে. একসময় দেখলাম মায়ের জিভ বেরিয়ে এলো, মায়ের চোখ বড়ো বড়ো হয়ে গেলো উফফফফফ….. কি ভয়ানক লাগছিলো মাকে দেখছে.

তারপরেই মা খুব জোরে চিৎকার করতে আরম্ভ করলো আর লোকটা অমনি নুনুটা মায়ের ভেতর থেকে নুনুটা বার করে নিলো আর অমনি দেখলাম মা হিসু করতে শুরু করলো. লোকটার কোলে চড়েই মা খুব জোরে হিসু করতে লাগলো. মা হাত দিয়ে নিজের নুনুর জায়গাটা নাড়তে লাগলো আর আরও জোরে হিসু বেরিয়ে আসতে লাগলো মায়ের. লোকটা মাকে আরও উঁচুতে তুলে ধরলো. তারফলে মায়ের হিসু আরও ওপর থেকে সোজা নীচে পরে আওয়াজ হতে লাগলো. লোকটার হাসির আওয়াজ পেলাম. bangali choti 2022

উফফফফফ আমি আর ওখানে দাঁড়িয়ে থাকতে পারলামনা রাজুদা. চলে এলাম. একটু পরে দেখি মা আমাকে জড়িয়ে শুয়ে পরলো. এসব কি ছিল রাজুদা? তুমি বলেছিলে তোমার মাকে তোমার জেঠু এসব করেছিল. কাল মাকে ওই লোকটা এসব করলো. এসব কি? এসবের মানে কি গো রাজুদা. রাজুদা চুপচাপ মন দিয়ে সব শুনলো. তারপর ওর মুখ দিয়ে বেরিয়ে এলো : পুনরাবৃত্তি. সব সেই আগের মতো. সেই একি কায়দায় সবকিছু. তারমানে আসল খেলা শুরু হয়ে গেছে.

চলবে…………

গল্পটি কেমন লাগলো ?

ভোট দিতে স্টার এর ওপর ক্লিক করুন!

সার্বিক ফলাফল / 5. মোট ভোটঃ

No votes so far! Be the first to rate this post.

Leave a Comment